UA-199656512-1
top of page

মৎস্য অবতার এর আবির্ভাব কিভাবে হল

Updated: Jun 25, 2020

আজকে আলোচনা করবো মৎস্য অবতার কিভাবে হল বিষ্ণুর দশ অবতার এর ভিতরে মৎস্য অবতার প্রথম আবির্ভাব করে।









পুরাকালে সত্যব্রত নামে এক রাজা বাস করত এক গ্রামে। তিনি পরম ভগবদ্ভক্ত ও উদার প্রকৃতির ব্যক্তি ছিলেন। এদিন তিনি কৃত মালা নামে এক নদীতে তর্পণ করছিলেন সেই সময়ে অঞ্জলি ভরা হাতের কোষে একটি ছোট্ট মাছ চলে আসে।মাছটি নিজেকে রক্ষা করার জন্য সত্যব্রত রাজার নিকট আর্তনাদ করতে থাকে। সত্যব্রত রাজা মাছটির আর্তনাদ শুনে তার নিজের হাতের কমুন্ডল এর মধ্যে করে নিজের গৃহে নিয়ে এলেন।ক মন্ডল এর মধ্যে থেকে মাছটি এ তো বড় হয়ে গেল যে তাকে আর সেই পাত্রে রাখা সম্ভব হচ্ছিল না।তারপর মাসটাকে একটি বড় পাত্রে রাখা হলো কিছুদিন পরে মাস্টি আরও বড় হতে লাগলো তাই তাকে ঘরের ভিতরে পাত্রে রাখা খুব বিপদ হয়ে গেল। এইভাবে মাছটি বাড়িতে রাখা যায়না। তাই রাজা সত্যব্রত তাকে নিয়ে সমুদ্রে গেলেন এবং ছেড়ে দেয়ার মন স্থির করলেন। সমুদ্রে মাস্টি কে ছেড়ে দেয়ার সময় মাছটি বলে উঠলো , রাজামশাই!সমুদ্রে তো বিশাল বিশাল প্রজাতির কুমির রয়েছে তারা আমাকে খেয়ে ফেলবে তাই আমাকে সমুদ্রে ছাড়বেন না। মাছের এই কাতর অনুরোধ শুনে রাজার খুব দয়া হল এবং চিন্তা করতে লাগলেন। সবকিছুই সে ভগবানের লীলা তা বুঝতে পারলেন তিনি হাত জোড় করে ভগবানের নিকট প্রার্থনা করতে লাগলেন।

মৎস্য রুপি ভগবান এর এই রূপ প্রকাশ হল ভগবান তার প্রিয় সত্যব্রত রাজাকে বললেন, সত্যব্রত রাজা! আজ থেকে ৭ দিনে এই ত্রি ভুবনের জলরাশিতে পূর্ণ হয় ডুবে যাবে।সেই সময় আমি তোমার কাছে একটা বড় নৌকা পাঠাবো তুমি সমস্ত জীব জন্তু গাছপালা এবং শস্য ও বীজ সহ নানা দ্রব্য নিয়ে সপ্ত ঋষি দের সাথে সেই নৌকাতে উঠবে এবং সেটাতে থাকবে।ভয়ানক ঝড় তুফানে তখন নৌকা আন্দোলিত হবে তখন আমি এই গ্রুপে এসে তোমাদের সবাইকে রক্ষা করব। রাজাকে ভগবান এই কথা বলে অন্তর্ধান হয়ে গেলেন।

অবশেষে সেই দিন চলে আসলো।রাজা সত্যবতীর চোখের সামনেই সমস্ত পৃথিবী জলে ঢুকতে লাগল এবং প্রলয় শুরু হল।সত্যব্রত তখন ভগবানের সেই কথা স্মরণ করে মনে মনে চিন্তিতও হলো এবং সেই গোপন কথা তার মনে পড়ে গেল। সাথে সাথেই তিনি দেখলেন যে ভগবানের বলা সেই নৌকা ও এসে পড়ল।তিনি ভগবানের নির্দেশমতো সমস্ত জীব জন্তু গাছপালা ঋষিগণ ও দরকারি ইত্যাদি বস্তু নিয়ে তাৎক্ষণিক উঠলেন।

সপ্ত ঋষি দের নির্দেশে রাজা সত্যব্রত ভগবানের ধ্যান করতে শুরু করলেন। সেই সময় সেই বিশাল জনসমুদ্রে ভগবান রূপ ধারণ করলে আবির্ভূত হলেন।তারপরে তিনি প্রলয় সমুদ্রে বিহার করতে করতে রাজা সত্যকে জ্ঞান ভক্তির নানা উপদেশ প্রদান করতে শুরু করলেন। হয়গ্রীব নামে এক রাক্ষস ছিল সে গ্রম্মার মুখনিঃসৃত বেদ গুলি চুরি করে পাতালে গিয়ে লুকিয়ে ছিল। ভগবান মৎস্য রুপি সর্বশক্তিমান ভগবান সেই কে বাদ পড়ে সেই বেদ উদ্ধার করেন।

সমগ্র বিশ্বের বড় কারণ ভগবান এর আবির্ভাব এভাবেই হয়েছিল এবং এই জগত কে সে এই শিক্ষা দিয়েছিল।

বিজ্ঞানীদের মতে পৃথিবীতে প্রথম জলের উৎপত্তি সনাতন সংস্কৃতিতেও সেটাই বলা হয়েছে এবং হাজার হাজার বছর আগে তা বিভিন্ন গ্রন্থে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে জল থেকেই যে জগতের সৃষ্টি তা এই মৎস্য অবতার সম্বন্ধে আমরা জানতে পারি এবং তা জেনেছি।



লিখেছেনঃ--শ্রীসৈকত কুমার,বরগুনা,বরিশাল,বাংলাদেশ


129 views0 comments
Be Inspired
bottom of page