UA-199656512-1
top of page

মানুষ পশু নয়

Updated: Sep 17, 2020

আহার-নিদ্রা-ভয় মৈথুনঞ্চ সামান্যমেতৎ পশুভির্নরানাম্। ধর্মো হি তেষামধিকো বিশেষো ধর্মেণ হীনাঃ পশুভিঃ সমানাঃ।।

( মনুসংহিতা)

অর্থাৎ:

আহার নিদ্রা ভয় মৈথুন মানুষ এবং পশু এর সাধারণ (সামান্য) বৈশিষ্ট্য। মানুষের ভিতরে কেবল ধর্মই বিশেষ আধিক্য বহন করে। ধর্মহীন মানুষ পশুর সমান।




পুরুষ প্রাণী স্ত্রী প্রাণীর দিকে আকৃষ্ট হয়, কাম বশে তার পিছনে পিছনে ছুটে বেড়ায়।এটা প্রকৃতির একটি সাধারণ নিয়ম।কিন্তু আমরা মানুষ,বিগত জন্মের লক্ষ লক্ষ পশুপাখির দেহধারণ ও পরিত্যাগ করে এই দুর্লভ মানব জন্ম পেয়েছি।

আমাদের পক্ষে সাধারণ জীবের মত, পশুর মত নারী-পুরুষের পিছনে ,পুরুষ নারীর পিছনে(বিবাহের দ্বারা এই দুইটি বৈধ কিন্তু পশুর মত নয়) বা সমকামিতার(অবৈধ) মত জঘন্য ক্রিয়ার প্রতি আকর্ষণ শোভা পায়না।


প্রকৃতির অন্ধ প্রেরণায় সকল একে অপরের পিছনে ঘুরঘুর করে বেড়ায় কিন্তু হে মানুষ আমাদেরকে দেয়া হয়েছে জ্ঞান বুদ্ধি বিবেক, তোমাকে পশুর মত আচরণ করার জন্য, বয়সের দোষ বলে অপরাধ করার প্রবণতা দেখানোর জন্য এগুলো দেয়া হয়নি।


তাই ইতর জন্তুর সহবাস দেখে, কুরুচিপূর্ণ অশ্লীল নারী-পুরুষের ভিডিও দেখে যদি আমাদের রুচি জন্মে, ভালো লাগা কাজ করে, নিষিদ্ধ সুখ আস্বাদনে মনের চঞ্চলতা কাজ করে তবে জানতে হবে আমরা এখনো মানুষের স্তরে পৌঁছাতে পারিনি, আমরা বাস করছি পশুর স্তরে।



ওরে দুষ্ট ,তুমি যে নিষিদ্ধ কাম অভিনয় (পর্ন সাইট) দেখতে পছন্দ করো তাতেই প্রমাণ হচ্ছে যে তুমি মানুষের দেহ ধারণ করলেও তোমার মন আজও পশুর রূপ ধরে আছে।


হে সনাতনী, হে মানুষ, কেন ম্লেচ্ছ,যবনের আচরণের প্রতি তোমার এত উন্মুখতা।

পশুর মতো যেখানে সেখানে, রাতে-দিনে, যাকে তাকে মুখ করার প্রবৃত্তি তোমার এলো কোথা থেকে। চুলের হেয়ার কাটিং দিয়ে নারীকে আকর্ষণ করায় তোমার মূল লক্ষ্য, এটাই তোমার জীবন। যবনদের মত নিজের জীবনের উদ্দেশ্য কে ভুলে যাবেন না, তাদের মা-বোনের বিচার নাই, মামাতো বোন আদির বিচার নাই, বয়সে ছোট বড় বিচার নাই, সময় জ্ঞানের বিচার নাই।


তুমি নারী কি পুরুষ এটা মূল বিষয় নয়। তুমি সৌভাগ্যবান যে তুমি মানুষ হয়েছো, তুমি সৌভাগ্যবান সনাতন ধর্মে জন্মগ্রহণ করেছে, তুমি সৌভাগ্যবান ভারতবর্ষে জন্মগ্রহণ করেছ। তাই বিদেশি যবন,ম্লেচ্ছের আহবানে সাড়া দিওনা।


সাড়া যদি দিতে হয় তবে বেদের আহবানে সাড়া দাও, সারা যদি দিতে হয় তবে ভগবানের গীতা বাক্যে সাড়া দাও, (বিবাহের মাধ্যমেও মহাপ্রভুর আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায়।) সাড়া যদি দিতে হয় তবে কলিযুগ পাবনাবতার গৌরাঙ্গের হরিনাম, হরে কৃষ্ণ মহামন্ত্রে সারা দাও।



যতক্ষণ মানুষ দেহে আছো, ততক্ষণ তোমাকে মানুষের মতনই থাকতে হবে,মানুষের মতনই চলতে হবে, মানুষের মতনই ভাবতে হবে।


সত্য সনাতন ধর্মের জয় হোক।

জয় হোক শ্রীমন্মহাপ্রভুর।।



লেখকঃ শ্রী কঙ্কণ বিশ্বাস।



101 views0 comments
Be Inspired
bottom of page